Menu

ধর্মসংস্কার ও জাতীয়তাবাদের প্রসারে স্বামী বিবেকানন্দ ও রামকৃষ্ণ মিশনের ভূমিকা আলোচনা কর

ধর্মসংস্কার ও জাতীয়তাবাদের প্রসারে স্বামী বিবেকানন্দ ও রামকৃষ্ণ মিশনের ভূমিকা আলোচনা কর সূচনা দেশপ্রেম ও আত্মবিশ্বাসের মূর্ত প্রতীক ছিলেন স্বামী বিবেকানন্দ (১৮৬৩-১৯০২ খ্রি.)। তাঁর জীবন ও বাণী বিদেশি শাসনে নির্যাতিত ভারতবাসীকে আত্মবিশ্বাসে বলীয়ান করে নতুন শক্তিতে উজ্জীবিত করে তোলে। বিবেকানন্দ ধর্মকে সমাজের দুর্দশার সঙ্গে একাত্ম করে দেখেছিলেন। তাঁর মতে, “যে ধর্ম পিতৃমাতৃহীন অনাথের মুখে এক …

চিনের ৪ মে-র আন্দোলনের কারণ ও গুরুত্ব আলোচনা কর

চিনের ৪ মে-র আন্দোলনের কারণ ও গুরুত্ব আলোচনা কর ভূমিকা ১৯১৪ খ্রিস্টাব্দে প্রথম বিশ্বযুদ্ধ শুরু হলে জাপান চিনের প্রতি আগ্রাসন চালায়। যুদ্ধে চিন মিত্রপক্ষে যোগ দিলেও যুদ্ধের পর চিন কোনো সুবিচার পায়নি। এর পরিপ্রেক্ষিতে বিদেশি আধিপত্যের বিরুদ্ধে চিনে ১৯১৯ খ্রিস্টাব্দের ৪ মে এক আন্দোলন শুরু হয় যা, ৪ মে-র আন্দোলন নামে পরিচিত। কারণ এই আন্দোলনের …

বাংলার বাইরে সমাজসংস্কার আন্দোলনে প্রার্থনাসমাজ ও আর্যসমাজের ভূমিকা লেখ

বাংলার বাইরে সমাজসংস্কার আন্দোলনে প্রার্থনাসমাজ ও আর্যসমাজের ভূমিকা লেখ ব্রিটিশ শাসনকালে পাশ্চাত্য শিক্ষার প্রভাবে বাংলার বাইরেও বিভিন্ন সমাজ সংস্কারক সংস্কার আন্দোলন করেন। বাংলার বাইরে একাজে গুরুত্বপুর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন এমন দুটি প্রতিষ্ঠান হলো—প্রার্থনাসমাজ এবং আর্যসমাজ। প্রার্থনাসমাজের ভূমিকা মহারাষ্ট্রের সমাজসংস্কারক আত্মারাম পান্ডুরঙ্গ কেশবচন্দ্র সেনের দ্বারা প্রভাবিত হয়ে ১৮৬৭ খ্রিস্টাব্দে মহারাষ্ট্রে প্রার্থনাসমাজ’ প্রতিষ্ঠা করেন। পরবর্তীকালে বিচারপতি মহাদেব …

ব্রিটিশ শাসনকালে আদিবাসী ও দলিত সম্প্রদায়ের আন্দোলনের বিবরন দাও

ব্রিটিশ শাসনকালে আদিবাসী ও দলিত সম্প্রদায়ের আন্দোলনের বিবরন দাও ভারতে ইংরেজ রাজত্বের ইতিহাস অনেকাংশে আদিবাসী-দলিত সম্প্রদায়ভুক্ত মানুষের বীরত্বপূর্ণ সংগ্রামের ইতিহাস। ইতিহাস সূত্র পর্যালোচনায় দেখা যায়, এই পশ্চাদপদ আদিবাসী ও দলিত শ্রেণি কেবলমাত্র ব্রিটিশ রাজশক্তির হাতে লাঞ্ছিত হয়নি, সমাজের তথাকথিত উচ্চবর্ণের পাশাপাশি মধ্যস্বত্ত্বভোগী জমিদার, মহাজন শ্রেণির হাতেও নিগৃহীত হয়েছে। তবে এই সীমাহীন অত্যাচারের সবটাই তারা মুখ …

ডিরোজিওর নব্যবঙ্গ আন্দোলনের পরিচয় দাও এই আন্দোলনের সীমাবদ্ধতা বা ব্যর্থতা আলোচনা কর

ডিরোজিওর নব্যবঙ্গ আন্দোলনের পরিচয় দাও এই আন্দোলনের সীমাবদ্ধতা বা ব্যর্থতা আলোচনা কর                               নব্যবঙ্গ আন্দোলন উনিশ শতকে সাংস্কৃতিক আন্দোলনের ইতিহাসে যারা গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছেন তাঁদের মধ্যে অন্যতম ছিলেন হিন্দু কলেজের তরুণ শিক্ষক হেনরি লুই ভিভিয়ান ডিরোজিও (১৮০৯-১৮৩১ খ্রি.) এবং তাঁর নেতৃত্বে গড়ে ওঠা নব্যবঙ্গ বা ইয়ং বেঙ্গল (Young Bengal) দল। (১) নব্যবঙ্গ আন্দোলন কী ডিরোজিওর …

ভারতে পাশ্চাত্য শিক্ষার সূচনা ও প্রসার আলোচনা কর

ভারতে পাশ্চাত্য শিক্ষার সূচনা ও প্রসার আলোচনা কর ব্রিটিশ শাসন প্রতিষ্ঠার সূচনালগ্নে ভারতে পাঠশালা, টোল, মক্তব, মাদ্রাসা প্রভৃতি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভারতীয়রা আরবি, ফারসি ও সংস্কৃত ভাষার মাধ্যমে শিক্ষালাভ করত। ব্রিটিশ শাসকরাও প্রথম দিকে এদেশে পাশ্চাত্য শিক্ষার প্রসারে বিশেষ আগ্রহ দেখায়নি। এই সময়কালে ওয়ারেন হেস্টিংসের উদ্যোগে ‘কলিকাতা মাদ্রাসা’, উইলিয়াম জোনস্-এর উদ্যোগে ‘কলিকাতা এশিয়াটিক সোসাইটি’ (১৭৮৪ খ্রি.) এবং …

ব্রিটিশ ভারতের মধ্যবিত্ত শ্রেণির বৈশিষ্ট্য আলোচনা কর

ব্রিটিশ ভারতের মধ্যবিত্ত শ্রেণির বৈশিষ্ট্য আলোচনা কর ভূমিকা পাশ্চাত্য শাসনের অন্যতম ফসল ভারতীয় মধ্যবিত্ত শ্রেণি। মধ্যবিত্ত শ্রেণির কিছু সুনির্দিষ্ট বৈশিষ্ট্য লক্ষ করা যায়। যেমন— (১) উচ্চবর্ণের হিন্দুদের প্রাধান্য ব্রিটিশ শাসনাধীনে ভারতে যে মধ্যবিত্ত শ্রেণির বিকাশ ঘটেছিল তার সংখ্যাগরিষ্ঠ অংশই ছিল উচ্চবর্ণের হিন্দু। সরকারি চাকরির বেশিরভাগই ব্রাহ্মণ, কায়স্থ, বৈদ্য ও ক্ষত্রিয়দের দখলে ছিল। সরকারি চাকরিতে মুসলিম …

মধ্যবিত্ত শ্রেণির উদ্ভবের প্রেক্ষাপট আলোচনা কর

মধ্যবিত্ত শ্রেণির উদ্ভবের প্রেক্ষাপট আলোচনা কর মধ্যবিত্ত শ্রেণির উদ্ভবের সময়কাল সাধারণভাবে মনে করা হয় যে, ভারতীয় সমাজে ব্রিটিশ শাসনকালে মধ্যবিত্ত শ্রেণির উত্থান ঘটেছিল। তবে কেউ কেউ মনে করেন যে, ব্রিটিশ শাসনকালের পূর্বেই ভারতীয় সমাজে মধ্যবিত্ত শ্রেণির উত্থান শুরু হয়েছিল। যেমন—ইকতিদার আলম খান তাঁর ‘দ্য মিডল ক্লাসেস ইন দ্য মোগল এম্পায়ার’ প্রবন্ধে দেখিয়েছেন যে, মোগল আমলে …

চিরস্থায়ী বন্দোবস্তের উপর সংক্ষিপ্ত প্রবন্ধ লেখ

চিরস্থায়ী বন্দোবস্তের উপর সংক্ষিপ্ত প্রবন্ধ লেখ বাংলায় স্থায়ীভাবে ভূমি-রাজস্ব ব্যবস্থা প্রবর্তনের নির্দেশ দিয়ে কর্নওয়ালিশকে ১৭৮৬ খ্রিস্টাব্দে ভারতে পাঠান। কর্নওয়ালিশ বড়োলাট হয়ে ভারতে আসেন ১৭৮৬ খ্রি.। [] শোর-গ্রান্ট বিতর্ক : কর্নওয়ালিশ ভারতে জমির বন্দোবস্ত নিয়ে আলোচনা শুরু করলে পরস্পরবিরোধী দুটি অভিমতের সৃষ্টি হয়। (১) রাজস্ব বিভাগের প্রধান জন শোর বলেন যে, মোগল আমলে জমিদাররাই ছিল জমির …

কর্নওয়ালিশের ভূমিরাজস্ব ব্যবস্থার পরিচয় দাও

কর্নওয়ালিশের ভূমিরাজস্ব ব্যবস্থার পরিচয় দাও [] বাংলায় স্থায়ীভাবে ভূমি-রাজস্ব ব্যবস্থা প্রবর্তনের নির্দেশ দিয়ে কর্নওয়ালিশকে ১৭৮৬ খ্রিস্টাব্দে ভারতে পাঠান। কর্নওয়ালিশ বড়োলাট হয়ে ভারতে আসেন ১৭৮৬ খ্রি.। শোর-গ্রান্ট বিতর্ক : কর্নওয়ালিশ ভারতে জমির বন্দোবস্ত নিয়ে আলোচনা শুরু করলে পরস্পরবিরোধী দুটি অভিমতের সৃষ্টি হয়। (১) রাজস্ব বিভাগের প্রধান জন শোর বলেন যে, মোগল আমলে জমিদাররাই ছিল জমির মালিক। …

error: Content is protected !!